মানিকগঞ্জে পুলিশ-বিএনপি সংঘর্ষ; দুই সহস্রাধীক নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে মামলা

আশরাফুল ইসলাম
মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি.

মানিকগঞ্জে পুলিশ ও বিএনপির নেতা-কর্মীদের সংঘর্ষের ঘটনায় ৩৩ জনের নাম উল্লেখ এবং দলের অজ্ঞাত দুই সহস্রাধীক নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে মামলা করেছে সদর থানার পুলিশ।

গতকাল বৃহস্পতিবার (১ সেপ্টেম্বর) রাতে বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন মানিকগঞ্জ সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. আব্দুল লিটন।
মামলার উল্লেখযোগ্য আসামি হলেন- সদর উপজেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ফজলুল হক, যুবদলের নেতা সেলিম মোহাম্মদ, ছাত্রদলের নেতা রুবেল মাহমুদ, জেলা বিএনপির সহসভাপতি আজাদ হোসেন খান, জেলা যুবদলের আহ্বায়ক কাজী মোস্তাক হোসেন দীপু, সদস্যসচিব তুহিনুর রহমান তুহিন, পৌর যুবদলের ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক রাজিব হাসান খান, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সদস্যসচিব আওলাদ হোসেন, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি রিয়াজুল ইসলাম সজীব, সাধারণ সম্পাদক নুসরাতুল ইসলাম জ্যাকি, সরকারি দেবেন্দ্র কলেজ ছাত্রদলের আহ্বায়ক সিরাজুল ইসলাম সজীব, জেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি গোলাম কিবরিয়া সাঈদ, জেলা বিএনপির দপ্তর সম্পাদক আরিফ হোসেন লিটন, আসাদুজ্জামান শিপু, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সিনিয়র যুগ্ম-আহ্বায়ক জিন্নাহ খান, জেলা বিএনপির যুববিষয়ক সম্পাদক রিয়াজ মাহমুদ হারেজ, জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম-সম্পাদক আব্দুল খালেক শুভ, জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক রফিক উদ্দিন ভূঁইয়া হাবু, জেলা যুবদলের যুগ্ম-আহ্বায়ক মাহবুবুল আলম উজ্জ্বল ও শিহাব সুমন, সিনিয়র যুগ্ম-আহ্বায়ক জিয়া উদ্দিন আহাম্মেদ কবীর, জেলা ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক রাকিব হাসান তপু, অলিদ, জেলা যুবদলের সাবেক ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক গোলাম রফি অপু, মাসুদুর রহমান মাসুদ (চরগড়পাড়া), জেলা শ্রমিক দলের সভাপতি আব্দুল কাদের, সাধারণ সম্পাদক কসাই লিটন, জেলা যুবদলের যুগ্ম-আহ্বায়ক আসিফ ইকবাল রনি, জেলা বিএনপির সদস্য শরিফুল ইসলাম চাঁন, জেলা জাসাসের যুগ্ম-আহ্বায়ক মঞ্জুরুল আলম পালু, কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাবেক নেতা মাহফুজুর রহমান মাহফুজ, ছাত্রদলের সাবেক নেতা আব্দুর রহমান পণ্ডিত আনন্দ, জেলা বিএনপির যুগ্ম-সম্পাদক সত্যেন কান্ত পণ্ডিত ভজনসহ অজ্ঞাত দুই সহস্রাধীক ।
এদের মধ্যে বৃহস্পতিবার সংর্ঘষ চলাকালীন সময়ে সদর থানা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ফজলুল হক, ছাত্রদল নেতা সেলিম মোহাম্মদ ও রুবেল মাহমুদকে গ্রেফতার করে পুলিশ।
গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে জেলা বিএনপির শহরের সেওতা এলাকা থেকে একটি র্যা লি বের হয়। র্যা লিটি খালপাড় এলাকায় পৌঁছালে পুলিশি বাধার মুখে পড়ে। এক পর্যায়ে পুলিশের সঙ্গে বিএনপি নেতাকর্মীরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে টিয়ারশেল ছুড়ে পুলিশ। এ ঘটনায় পুলিশ, সাংবাদিকসহ বিএনপি নেতাকর্মীরা আহত হন।
মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে, আসামিরা জেলা শহরের সেওতা এলাকার শহীদ তজু সড়কে যান চলাচল বন্ধ রেখে সরকার ও রাষ্ট্রবিরোধী স্লোগান দিতে থাকেন। যান চলাচল স্বাভাবিক রেখে রাস্তা বন্ধ না করতে অনুরোধ করলেও তাঁরা এর কোনো তোয়াক্কা না করে রাস্তার ওপর অবস্থান নেন। একপর্যায়ে পুলিশের সঙ্গে ধাক্কাধাক্কিতে লিপ্ত হন। পরে পুলিশের পক্ষ থেকে বাঁশি বাজিয়ে তাঁদের ওপর মৃদু লাঠিপেটা করা হয়। এরপর আসামিরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করলে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রউফ সরকার, কনস্টেবল শাহীনসহ সাত পুলিশ সদস্য ও সাংবাদিকেরা আহত হয়। তাঁরা দুটি মোটরসাইকেল ভাঙচুরসহ ব্যাপক ক্ষতি করেন। অভিযুক্ত আসামিদের মধ্যে প্রথম তিনজনকে ঘটনাস্থল থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে এবং অন্যদের গ্রেপ্তারের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে।
মানিকগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রউফ সরকার বলেন, বৃহস্পতিবার বিএনপির নেতাকর্মীরা পুলিশের ওপর লাঠিসোটা ও ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। এতে বেশ কয়েকজন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। আসামিদের গ্রেফতারে চেষ্টা চলছে।
মানিকগঞ্জ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এস এ জিন্নাহ কবির বলেন, “ দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বের হওয়া শান্তিপূর্ণ র্যা লিতে পুলিশ বিনা উসকানিতে বিএনপির নেতাকর্মীদের ওপর হামলা চালায়। এতে শতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। অথচ বিরোধী দলকে দমানের জন্য সরকারের নির্দেশে বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা হয়েছে। তীব্র নিন্দা জানাই। একই সঙ্গে অবিলম্বে মামলাটি প্রত্যাহারেরও দাবি জানাই। ”
উল্লেখ্য, গতকাল বিএনপির ৪৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর মিছিলে পুলিশের বাধায় পুলিশ ও বিএনপির নেতা-কর্মীদের সংঘর্ষে বিএনপির শতাধিক নেতা-কর্মী এবং থানার ওসি আব্দুর রউফ সরকার, কনস্টেবল শাহীনসহ সাত পুলিশ সদস্য ও স্থানীয় সাংবাদিকেরা আহত হয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.