আত্রাইয়ে খেয়া ঘাটে অতিরিক্ত টোল আদায়ের অভিযোগ ২ টাকার টোল ১৫ টাকা

মোঃছাইফুল ইসলাম শাহীন রাণীনগর নওগাঁ প্রতিনিধিঃ

নওগাঁর আত্রাইয়ের সমসপাড়া-ভাঙ্গাজাঙ্গাল খেয়াঘাটে সরকার নির্ধারিত জনপ্রতি এক টাকার টোল সাত টাকা এবং খালি রিক্সা/ভ্যান প্রতিটি দুই টাকার স্থলে ১৫টাকা আদায় করার অভিযোগ ওঠেছে ইজারাদারের বিরুদ্ধে। ঘাটে টোল চার্ট না ঝুলিয়ে ইচ্ছে মতো আদায় করছেন ইজারাদার। ফলে প্রতিদিন নদী পারা-পারে যাত্রীরা অর্থনৈতিকভাবে চরম ক্ষতিগ্রস্থ্য হচ্ছেন। ইজারাদার বলছেন,সরকার নির্ধারিত কয় টাকা টোল রয়েছে তা আমার জানা নেই। তবে আগের ইজারাদার যেভাবে আদায় করেছেন আমিও সেভাবে আদায় করছি।আত্রাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দপ্তর সুত্রে জানাগেছে,উপজেলার আত্রাই-সিংড়া নদীর সমস পাড়া-ভাঙ্গাজাঙ্গাল খেয়া ঘাট চলতি বাংলা সনে এক বছরের জন্য আট লক্ষ ৫৭হাজার ৫০১টাকায় ইজারা হয়েছে। ঘাট পারা-পারে সরকার নির্ধারিত টোল অনুযায়ী প্রতিপারে প্রতিজন এক টাকা,প্রতিটি মটরসাইকেল তিন টাকা,খালি টমটম প্রতিটি পাঁচ টাকা,বাইসাইকেল প্রতিটি আরোহিসহ দুই টাকা,খালি রিক্সা /ভ্যান প্রতিটি মালামালসহ তিন টাকা এবং খালি রিক্সা /ভ্যান প্রতিটি দুই টাকা,ছাগল/ভেড়া প্রতিটি এক টাকা এবং সকল প্রকার মালামাল প্রতিমন এক টাকা টোল রয়েছে। স্থানীয়রা বলছেন,এপর্যন্ত ঘাটে এপার থেকে ওপারে একবার পার হলে ইজারাদার প্রতিজন পাঁচ টাকা,প্রতি মটরসাইকেল পাঁচ টাকা,রিক্সা /ভ্যান প্রতিটি ১০ টাকা টোল আদায় করছিলেন,কিন্তু জালানী তেলের মূল্য বৃদ্ধির অজুহাতে জনপ্রতি আরো দুই টাকা বৃদ্ধি করে এখন সাত টাকা ,রিক্সা /ভ্যান ১০টাকা থেকে১৫টাকা করে আদায় করছেন। নদীর ঘাটে পারা-পারে অপেক্ষারত সুসিল চন্দ্র, জান্নাতুন বিবি,আলেফ হোসেনসহ বেশ কিছু যাত্রীরা বলেন,এলাকার মধ্যে সবচাইতে বড় হাট হচ্ছে সমসপাড়াহাট।এই হাটেই ধান,চাল,গম,ভুট্টাসহ বিভিন্ন কৃষি উৎপাদিত মালামাল ক্রয় বিক্রয় করাহয়। এছাড়া এই হাটেই ইউনিয়ন পরিষদ,ভুমি অফিস, বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন ব্যাংক এনজিওসংস্থারয়েছে।প্রয়োজনের তাগিদে প্রতিদিন নদীর দক্ষিণ পারের লোকজনকে প্রায় তিন চার বারকরে যাওয়া আসা করতে হয়। এতে একেক জন মানুষকে পারা পারের টোল দিতে হয় ৪৫ থেকে ৫০টাকা।এছাড়া নদীর দক্ষিণ বাঁধ দিয়ে আত্রাই থেকে নাটোরের সিংড়া পর্যন্ত পাকা রাস্তা বয়ে যাওয়ায় উত্তর পারের লোকজনকে ও দক্ষিণ পারে যেতে হয়।এতে শুধু নৌকায় নদী পারা পারেই অনেক টাকা গুনতে হয়,এলাকাবাসিকে।ভ্যান চালক হানিফ বলেন, একটি ভ্যান পার করতে এখন ইজারাদারকে দিতে হচ্ছে ১৫ টাকা। ভ্যান নিয়ে একবার যাওয়া আসা করতে ৩০ টাকা দিতে হয়। কৃষক আনিছুর রহমান বলেন সমস পাড়া ঘাটে ধান, গোম, ভুট্টা নিয়ে যেতে পার ঘাটে প্রতিমন পাঁচ টাকা টোল দিতে হয়। তারা বলছেন, বছরের পর বছর এভাবে চললেও সুষ্ঠু তদারকির অভাবে এলাকার লোকজন অর্থনৈতিক ভাবে চরম ক্ষতি গ্রস্থ্য হচ্ছেন। অতিরিক্ত টোল আদায় বন্ধে এবং সরকার নির্ধারিত টোল আদায়ের ব্যবস্থা করতে সংশ্লিষ্টদের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন তারা।সমস পড়া ভাঙ্গজাঙ্গাল পার ঘাটের ইজারাদার আজাহার হোসেন বলেন, প্রায় ১২ বছর ধরে ঘাট ইজারা নিয়ে ব্যবসাকরে আসছেন। এপর্যন্ত তিনি ঘাটে টোল আদায়ের সরকার নির্ধারিত রেট জানেন না।তিনি বলেন, আগের ইজারাদার যে ভাবে আদায় করেছেন আমিও সেভাবে আদায় করছি। তবে জালানি তেলের দাম বৃদ্ধির কারনে জনপ্রতি দুই টাকা টোল বাড়ানো হয়েছে। তবে টোল আদায়ে কোনো রশিদ প্রদান করা হয়না বলেও জানিয়েছেন তিনি। আত্রাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইকতেখারুল ইসলাম বলেন, ঘাটে ইজারার সময় প্রতি ইজারাদারকে টোল আদায় তালিকা সরবরাহ করা হয়। অতিরিক্ত টোল আদায়ের কথা শুনে তাকে একটি নোটিশ করেছি।ঘাট ইজারাদার সরকার নির্ধারিত টোলের অতিরিক্ত আদায় করলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *