নবমীর বিহিত পূজার মধ্য দিয়ে দেবী কে বরণ!!

বিপ্লব সাহা খুলনা ব্যুরো চীফ :

নবমের বিহিত পূজার মধ্য দিয়ে খুলনারসকল দুর্গাপূজা মণ্ডপ গুলোতে আচার-অনুষ্ঠানিকতায় বরন করা হয়েছে দেবী দুর্গাকে। পরে ১৬ টি উপকরণ দিয়ে মা দুর্গাকে অঞ্জলি আর ভক্তি নিবেদন করেন ভক্তরা। শারদীয় দুর্গা উৎসবের জমজমাট মণ্ডপগুলো সম্প্রীতির বাংলাদেশ চিত্র এমনটাই বলছেন সনাতন ধর্মের প্রতিটি মানুষ।

নবমির সকাল মানে অশুভ শক্তি থেকে মুক্তি। শারদীয়া দুর্গা উৎসবের নবমী দিনে দেবী দুর্গা অসুর কে বধ করেছিলেন। শ্রী রামচন্দ্র দুর্গার শক্তি আর আশীর্বাদ নিয়ে এই দিনে অশুভ রাবণকে বিনাশ করেছিলেন বলে শাস্ত্র মতে একে অকালবোধন বলা হয়। সকালে সারাদেশের ন্যায় খুলনা জেলার প্রতিটি দূর্গা পূজা মন্ডপে বিহিত পূজার আনুষ্ঠানিকতায় দেবী দুর্গার প্রতি ভক্তদের ভক্তিতে জমজমাট হয়ে ওঠে পূজা মন্ডপ।

নবমী পূজার তাৎপর্য তুলে ধরে এনে খুলনা সেনেরবাজার ভারত সেবাশ্রমের পুরোহিত বলেন মা ধরাধামে এসে এভাবে বারেবারে অশুভ শক্তি ধ্বংস করছেন এবং শুভ শক্তির উদয় করছেন।
মহা নবমীর পূণ্য তিথিতে শ্রী রামচন্দ্র রাবণ বধ সুনিশ্চিত করেছেন।
আগামীকাল বিজয়াদশমীর মধ্য দিয়ে তা পরিপূর্ণতা লাভ করবে।

আজ ১৭ আশ্বিন ইংরাজি
৪ অক্টোবর মঙ্গলবার সূর্য উদয় ৫:৩৩ আদ্য সময়ে ৫ টা ২০ মিঃ পূর্বাহ্ন ৯: ২৮ মিঃ মহানবমী দিবা ১টা ৩৪ মিনিট পর্যন্ত পূর্বাহ্ন মধ্যে কিন্তু বারবেলানুরোধে দিবা ৭:0১ মিঃ এর মধ্যে পূর্ণ দিবা ৮:৩০মিঃ
গতে পূর্বাহ্ন মধ্য।

শ্রী শ্রী শারদীয়া দূর্গাদেবীর কেবল মহানবমী কল্পারম্ভ ও মহা নবমী বিহিত পূজা প্রশস্তা এবং দেবী নবরাত্রি ব্রত সমাপ্ত। বীরাষ্টমী ব্রত ও মহাষ্টমী ব্রতের পারন।

২০২২ সালে দেবী দুর্গার আগমন

এই বছর দেবী দুর্গার আগমন ঘটে যার অর্থ শস্য পুরনো বসুন্ধরা।
এবং ২০২২ সালে দেবী দুর্গার গমন ও মা কৈলাসে ফিরবেন নৌকায় যার শস্য বৃদ্ধি ওজন বৃদ্ধি।
বাঙালির সবচেয়ে বড় পার্বণ দুর্গাপূজা দেবী দুর্গা মহিষাসুরকে বধ করেছিলেন এজন্য বিশ্বাস করা হয় যে এই উৎসব খারাপ শক্তির বিনাশ করে শুভ শক্তির বিজয় হয়। আশ্বিন মাসের প্রায় দশদিন ধরে দূর্গাপূজার উৎসব পালিত হয়। যদিও প্রকৃত অর্থে উৎসব শুরু হয় ষষ্ঠীর দিন থেকে।

তবে দুর্গাপূজার ৫ দিন মহাষষ্ঠীর মহাসপ্তমী মহাষ্টমী মহানবমী এবং বিজয়াদশমী হিসেবে পরিচিত।এটি সকলেরই প্রায় জানা।তবে অনেকেরই অজানা প্রতিটি দিনের নিজস্ব অর্থ এবং তাৎপর্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *