ডিসেম্বর মাসের মধ্যে কাদের পন্থী জাপার খুলনা জেলা সম্মেলন অনুষ্ঠিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে!!

বিপ্লব সাহা খুলনা ব্যুরো চীফ :

খুলনায় জাতীয়পার্টির রওশান ও কাদের পন্থীরা সিদ্ধান্তে দোদুল্যমান অবস্থার মধ্য রয়েছে।
রওশনপন্থী জাতীয়পার্টির খুলনার নেতৃবৃন্দরা বলেছে আমরা ও রওশন এরশাদকে প্রধান করে নির্বাচনে অংশ নিয়ে জাতীয় পার্টির প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করব। এবং নির্বাচনী কর্মকাণ্ড চালিয়ে যেতে নিরলসভাবে কাজ করব।

এদিকে পাল্টা জবাবে কাদের পন্থী
খুলনা জেলার নেতাকর্মীরা বলেছেন দলের মধ্যে যতই ভেদাভেদ থাকুক না কেন আমরা জিএম কাদেরের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে জাতীয় পার্টিকে ধরে রেখে আগামী নির্বাচনে এগিয়ে যাব ইনশাআল্লাহ।
তবে আগামী নভেম্বরের মাঝামাঝি অথবা ডিসেম্বরে খুলনা জেলা পর্যায়ে জাতীয় পার্টির মহাসম্মেলনের মাধ্যমে বোঝা যাবে খুলনায় রওশান ও কাদের পন্থী বিভক্তির তোড়জোড় এর দৌরাত্ম্য কত দূর।
কাদের পন্থী নেতাকর্মীরা বলছে অনেক বাধা বিপত্তির মধ্য দিয়ে ও জিএম কাদের জাতীয় পার্টিকে এখনো সুসংগঠিতভাবে ধরে রাখতে সক্ষম হয়েছে।

সেই ক্ষেত্রে ভাঙ্গা গড়া সুসংবাদ আর দুঃসংবাদ এর মধ্যে দিয়ে জিএম কাদের পন্থী জাপা খুলনা জেলা সম্মেলনের প্রস্তুতি নিচ্ছে।
কাদের পন্থী জাপার দলীয় সূত্র থেকে বলেছে নভেম্বরের মাঝামাঝি অথবা ডিসেম্বরের প্রথমার্ধে জেলা সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। ইতিমধ্য জেলা কমিটির মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়েছে। রওশান পন্থীদের কেন্দ্রীয় কাউন্সিলের পর কাদের অংশের সমর্থন জানান দিতে শোডাউন থাকবে জেলা সম্মেলনে। পাঁচ বছর আগে খুলনা জেলা কমিটির সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

দলের প্রধান পৃষ্ঠপোষক বেগম রওশন এরশাদ ২৫ নভেম্বর কেন্দ্রীয় কাউন্সিল আহবানের পর দলের মধ্য চিড় ধরেছে। এ সম্মেলনকে বৈধ বলে বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গা দল থেকে বহিষ্কার হয়েছেন। তার বহিষ্কারের পর বিভিন্ন অংশ থেকে কর্মীরা প্রতিবাদের ঝড় তোলে। খুলনায় ও চিফ হুইপ রাঙ্গার সর্মথকরা ওই ভাষ্য কে স্বাগত জানান। এরপর থেকে মূলত খুলনায় দলে দ্বিধাবিভক্তি এসেছে।

কেন্দ্রীয় কাউন্সিল ডাকার পর সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুল গফফার বিশ্বাস নগর শাখার সাবেক সদস্য সচিব মোল্লা শওকত হোসেন বাবুল কেন্দ্রীয় সদস্য অ্যাডভোকেট মাসুদুর রহমান দলের পৃষ্ঠপোষক বেগম রওশন এরশাদের পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন। খুলনার পরিস্থিতি জানতে মহা সচিব মুজিবুল হক চুন্নু এমপি ১৭ আগস্ট কেন্দ্রীয় কার্যালয় জেলার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে আহ্বান জানান। এ সময় অতিরিক্ত মহাসচিব সাইদুর রহমান টেপা উপস্থিত ছিলেন। মহাসচিব তৃণমূল পর্যায়ে জাপাকে সংগঠিত করতে ইউনিয়ন উপজেলা ও জেলা কমিটির সম্মেলন এর নির্দেশনা দেন। এ আলোকে দলের জেলা কার্যালয়ে ১৭ সেপ্টেম্বর রুপসা দিঘলিয়া ও তেরখাদা উপজেলার নেতৃবৃন্দের সাথে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।এ সভায় সভাপতি শফিকুল ইসলাম মধু এ প্রতিবেদককে জানান বৈঠকে উল্লেখিত তিন উপজেলার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বৃন্দ ২৫ নভেম্বর কাউন্সিলরকে সংবিধানবিরোধী বলে উল্লেখ করেন। জেলা জাপার সভাপতি তথ্য দিয়েছেন রূপসা উপজেলা শাখার সভাপতি আবদুল ওয়াদুদ সাধারণ সম্পাদক মাহাতাব উদ্দিন তেরোখাদা উপজেলা সভাপতি মোহাম্মদ আলী সাধারণ সম্পাদক গোলাম রসূল দিঘলিয়া উপজেলা শাখার সভাপতি এড. লুৎফর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক সরদার জিয়াউল ইসলাম সভায় জিএম কাদের নেতৃত্বের প্রতি সমর্থন জানান।

এদিকে খুলনা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক এম হাদিউজ্জামান এ প্রতিবেদককে জানান দলকে সংগঠিত করতে তৃণমূল পর্যায় থেকে কমিটি গঠনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
ইউনিয়ন ও উপজেলা সম্মেলন শেষে জেলা সম্মেলনের আয়োজন হবে। তবে তা নভেম্বরে অথবা ডিসেম্বরে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *