খুলনা নগরীর বাসা বাড়ি থেকে এক নারীর দ্বিখণ্ডিত লাশ উদ্ধার!!

বিপ্লব সাহা খুলনা ব্যুরো চীফ :

খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের
কে এম পি অতিরিক্ত কমিশনার সোনালী সেনের অভিযানে আজ খুলনা নগরীর কে ডি এ এ্যভিনিউ এলাকার একটি বাসা থেকে স্বপ্না খাতুন ৩৫ নামে এক গৃহবধূর বাক্স বন্ধি লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।
এ সময় লাশের শরীর থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন অবস্থায় একটি পলিথিনের খাটের উপর মোড়ানো ছিল।
এদিকে ঘটনার পর থেকে নিহতের স্বামীর কোন সন্ধান পাওয়া যাচ্ছে না।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে নিহত স্বপ্না খাতুন এর স্বামীর নাম আবু বকর মোল্লা ( ২৫ ) তিনি নগীরর রেলস্টেশন রোড এলাকার আল আকসা নামে একটি ট্রান্সপোর্ট কোম্পানির ম্যানেজার পদে চাকরি করেন।

এ ব্যাপারে খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের ( কেএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার সোনালী সেন জানান আবু বকর একটি ট্রান্সপোর্ট কোম্পানিতে চাকরি করেন। রোববার (৬ নভেম্বর) সকালে তিনি কর্মস্থলে না যাওয়ায় ও মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় সহকর্মীরা তাকে খুঁজতে বাসায় যান। বাসাটি তালাবদ্ধ অবস্থায় দেখার এক পর্যায়ে তারা জানালা দিয়ে বিছানায় একটি বাক্স ও আশপাশে রক্ত দেখে পুলিশকে খবর দেন।
এবং ঘটনাস্থলে গিয়ে দরজা ভেঙে ভেতরে প্রবেশের পর পলিথিনের মোড়ানো মাথা ও একটি বাক্সের ভেতর থেকে স্বপ্না খাতুনের লাশ উদ্ধার করা হয়। এ সময় সেখান থেকে বেশ কিছু আলামত জব্দ করা হয়েছে।

ঘটনার তথ্য অনুসন্ধানে জানাজায় নগরী সোনাডাঙ্গা থানাধীন গোবর চাকা কেডিএ ১০৩ নং হোল্ডিং এ রাজু খার বাড়িতে স্ত্রী স্বপ্না খাতুন কে নিয়ে ভাড়া থাকতেন আবু বকর।
নিহত স্বপ্না খাতুন বাগেরহাটের রামপাল উপজেলার ভাগা গ্রামের আইয়ুব আলী সরদারের মেয়ে। আর আবুবকর মোল্লা একই গ্রামের জাকির মোল্লার ছেলে। আনুমানিক দুই থেকে আড়াই বছর আগে আবু বকর সোনাডাঙ্গা থানাধীন ওই বাড়িতে ভাড়াটিয়া হিসেবে ওঠেন। এবং নগরীর পাঁচ নম্বর ঘাট এলাকার আল আকসা ট্রান্সপোর্ট এজেন্সিতে ম্যানেজার পদে কর্মরত আছেন।

পুলিশের ধারণা হত্যার পর শরীর থেকে মাথাটি বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে।
রোববার ( ৬ নভেম্বর ) ভোরে অথবা শনিবার দিবাগত রাতের কোন এক সময় নৃশংস এই হত্যা কান্ডটি ঘটে।
এরপর থেকে এই আবুবকর পলাতক রয়েছেন। তবে কি কারণে ওই গৃহবধূ খুন হয়েছেন প্রাথমিকভাবে পুলিশ তা জানতে পারেনি ।

বাড়ির মালিক রাজু খা বলেন আবু বকর যে ট্রান্সপোর্ট প্রতিষ্ঠানে চাকরি করতেন সেই প্রতিষ্ঠানের মালিক রোববার সকালে তাকে খুঁজতে বাসায় আসেন।
এরপরই মূলত ডাকাডাকি করতে গিয়ে হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি জানা যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *