কোটচাঁদপুর সড়কে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে অবৈধ ট্রাক্টর

মোঃ রমজান আলীঃ ক্রাইম রিপোর্টার

ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুর উপজেলার বিভিন্ন সড়কে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে অবৈধ যান ট্রাক্টর। যা চলাচল করে কাক ডাকা ভোর থেকে গভীর রাত অবধি। ফলে ঝুঁকি নিয়ে সড়কে চলাচল করতে হচ্ছে ছোট বড় যানবাহন চালকসহ সাধারণ পথচারীদের। এছাড়াও এসব অবৈধ ট্রাক্টরে অরক্ষিতভাবে মাটি-বালু পরিবহনের ফলে স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে পড়ছে কোমলমতি শিশুসহ বয়োবৃদ্ধরা।
সরজমিনে গিয়ে দেখা যায় উপজেলার ইট ভাটায় ইট পোড়ানো মৌসুম শুরুর আগের অবৈধ যান ট্রাক্টরগুলো অদক্ষ, অপ্রাপ্ত বয়সী চালকদের হাতে উপজেলার বিভিন্ন সড়কজুড়ে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। এতে করে সড়কে চলাচলরত ছোটখাটো যানচালক, পথচারী, স্কুল কলেজগামী শিক্ষার্থীরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে প্রতিনিয়ত। অরক্ষিতভাবে অবৈধ ট্রাক্টরগুলো মাটি-বালু পরিবহনের ফলে মাটি-বালুর কনা বাতাসে ভাসছে। সেসব মাটি-বালুর কনাগুলো বাতাসের সাথে মিশে শ্বাসপ্রশ্বাসের সাথে মানুষের শরীরে প্রবেশ করছে। এতে শিশু সহ বয়োবৃদ্ধরা বেশি স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে পড়তে পারে বলে চিকিৎসকদের ধারণা।
এছাড়া রাতের আধারে উপজেলার বিভিন্ন মাঠ থেকে মাটি বহন করছে অবৈধ (ইঞ্জির চালিত দানব) ট্রাক্টরগুলো। আর ওই সব অবৈধ ট্রাক্টরের বিকট শব্দে রাতে ঠিকমতো ঘুমাতেও পারছে না সর্বসাধারণ। প্রভাব পড়ছে শিক্ষার্থীদের পড়া লেখায়।
সচেতন মহল বলছেন, পরিবেশ বিনষ্টকারী ইঞ্জিন চালিত অবৈধযান ট্যাক্টর বেশীরভাগ সময় ব্যবহার হচ্ছে মাটি-বালু পরিবহনের কাজে। উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে মাটি বোঝায় করে দ্রুত গতিতে পৌঁছে দিচ্ছে নিদিষ্ট গন্তব্যে। পরিবেশ বিনষ্টকারী অবৈধযানে মাটি বহনের কারণে মহাসড়ক, আঞ্চলিক সড়কগুলো মারাত্বকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে প্রতিনিয়ত। আর এসব অবৈধযান থেকে সড়কে পড়া মাটি গুলোর স্তুপের কারণে জনদুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে সর্বসাধারণের। ঘটছে ছোট,বড়ো দুর্ঘটনা। এসব যেন দেখার কেউ নেই! নিত্যদিনের জনদুর্ভোগ নিরসন ও স্বাস্থ্য ঝুঁকি কমিয়ে আনতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি দেয়া প্রয়োজন বলে মনে করেন সচেতন মহল।

সিনিয়র সাংবাদিক কামাল হাওলাদার বলেন, সড়কে অবৈধ ট্রাক্টরের চলাচলে সড়ক দুর্ঘটনায় ব্যাপক ঝুঁকি রয়েছে। স্কুলের শিক্ষার্থীসহ পথচারীরা যেকোন সময় সড়ক দুর্ঘটনায় স্বীকার হতে পারে। এগুলো বন্ধ হওয়া প্রয়োজন।
কোটচাঁদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্ত ডাক্তার আব্দুর রশিদ বলেন, মাত্রাতিরিক্ত শব্দ দুষণ মানুষের জন্য নিরব ঘাতক। ২০ হাজার হর্ণের উপর শব্দ মানুষের জন্য মারাত্মক ঝুঁকি। প্রতিনিয়ত অতিরিক্ত মাত্রায় শব্দ দুষণ হলে মানুষের শ্রবণ শক্তি কমে যাবে। যার ফলে দেশ ও জাতির উপর প্রভাব পড়তে পারে।
তিনি আরও বলেন, মানুষের শ্বাসপ্রশ্বাসের মাধ্যমে দেহে প্রতিনিয়ন ধুলা বালু প্রবেশ করতে থাকলে ফুসফুসে মারাত্মক ক্ষতি হবার সম্ভাবনা রয়েছে। এক সময় দেখা যাবে ফুসফুস তার কার্য ক্ষমতা হারাতে বসবে। এছাড়াও ধুলা-বালু শরীরে প্রবেশ করলে এ্যালাজি, এ্যাজমা, সর্দি-কাশি জাতীয় রোগ হবার সম্ভাবনা রয়েছে। তাছাড়া মানুষের স্কিনে অতিমাত্রায় ধুলা-বালু পড়লে স্কিন তার স্বাভাবিক ক্ষমতা হারিয়ে ফেলবে এবং বিভিন্ন প্রকার চর্ম জাতীয় রোগ বালায় হবে। তাই ধুলা-বালু এড়িয়ে চলতে সচেতনতা বৃদ্ধি সহ নিয়মিত মাস্ক ব্যবহারের অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে।
কোটচাঁদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার খান মাসুম বিল্লাহ বলেন, সড়কে অবৈধ ট্রাক্টর চলাচল আইন পরিপন্থী। জেলা প্রশাসন থেকে নির্দেশনা পেয়েছি । অচিরেই উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে অভিযান চালিয়ে আইনগত ব্যবস্থাগ্রহণ করা হবে। সেই সাথে জণগণকে সচেতন হতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *