শীতের শুরুতেই কোটচাঁদপুরে লেপ তৈরির ধুম

মোঃ রমজান আলীঃ ক্রাইম রিপোর্টার

শীতের প্রকোপ থেকে রক্ষা পেতে এখন বাজারে চলে এসেছে আধুনিক প্রযুক্তিতে তৈরি বিভিন্ন রকমের কম্বল ও গরম চাদর। তবে বাঙালির শীতকাতুর হৃদয়ে লেপের স্থানই আলাদা। শীত আসার আগেই তাই লেপ-তোষক বানানোর ধুম পড়েছে কোটচাঁদপুরে। লেপ-তোষকের দোকানে দেখা যায় লাল আভা। কিন্তু কখনো ভেবেছেন লেপের তুলো কেন লাল কাপড়েই মোড়ানো হয়?

প্রবীন দের কাছে শোনা লাল কাপড়ে লেপ তৈরি শুরু হয় বাংলা, বিহার ও উড়িষ্যার নবাব মুর্শিদকুলি খানের আমল থেকে। সেই সময়েই লাল মখমলের কাপড় দিয়ে লেপ তৈরি শুরু। মুর্শিদাবাদে লম্বা কার্পাস তুলোর চাষ হতো, সেই তুলো লাল রঙে চুবিয়ে মোলায়েম মখমলের কাপড়ে ভরা হতো। সুগন্ধির জন্য ছিটিয়ে দেয়া হতো আতর। কিন্তু মখমল ও সিল্কের দাম সাধারণের হাতের বাইরে। তাই সাধারণ মানুষ লাল কাপড়েই তুলা ভরা শুরু করেন।
এই গল্প প্রচলিত রয়েছে ধুনুরিদের একাংশের মধ্যেও। সেই থেকে লাল কাপড়ে লেপ বানানোর রীতি চলে আসছে। তবে এই মতের বিরুদ্ধ মতো কম নয়। কেউ কেউ বলেন, লেপ কখনো ধোয়া যায় না। তাই গাড় রঙের লাল কাপড় ব্যবহারের ফলে ময়লা কম দেখা যায়।
অনেকেই আবার মনে করেন, এ সব নিছকই গল্প। ইতিহাস বা ঐতিহ্য নয়। এ কেবল রীতি ছাড়া আর কিছুই নয়। বরং ব্যবসার খাতিরে দূর থেকে ক্রেতার দৃষ্টি আকর্ষণ করতেই লাল কাপড়ে মুড়ে রাখা হয় শীতের লেপ। তবে কারণ যাই হোক, হেমন্ত পেরিয়ে শীতের দিকে এগোলেই যে মন একটু ‘লেপ লেপ’ করবে, তা অস্বীকার করতে পারবে না অনেকেই। তবে যতো বাহারি কাপড় দিয়ে গরমের জিনিস তৈরি করা হোক না কেন। শিতে তুলা দিয়ে তৈরি লেপ গায়ে দেওয়ার মজাই আলাদা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *